সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ০৭:১৮ পূর্বাহ্ন

হোয়াটসঅ্যাপ চ্যানেল চালু করলো আ:লীগ

শেখ সাদী খান / ১১৮ Time View
Update : বৃহস্পতিবার, ২৫ জানুয়ারী, ২০২৪

ভারতীয় উপ-মহাদেশে শতাব্দী প্রাচীন, বহু লড়াই সংগ্রাম,ষড়যন্ত্র, চক্রান্ত ও ভাঙাগড়ার মধ্য দিয়ে আপন মহিমায় উদ্বাসিত হয়ে ঘুরে দাঁড়ানো অন্যতম রাজনৈতিক সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। এবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অধিক জনপ্রিয় অ্যাপস ওয়াটসঅ্যাপ চ্যানেলে প্রবেশ করলো দলটি। যার মাধ্যমে তৃণমূল পর্যায়ে ও সাধারণ মানুষের সঙ্গে যোগাযোগ আরও সহজ হয়ে দাঁড়ালো।

আজ বৃহস্পতিবার (২৫ জানুয়ারি) দলটির ওয়েব টিমের পক্ষ থেকে এই তথ্য জানানো হয়।

দীর্ঘ সময়ের পথ পরিক্রমায় এই রাজনৈতিক সংগঠনটি এখন সাধারণ খেটে মানুষের আস্থা এবং ভালবাসা অর্জন করতে পেরেছে শুধুমাত্র  দেশ ও দশের মঙ্গলময় ও কল্যাণমূলক কাজের জন্য।

বর্তমানে দলটির হাল ধরেছেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা শেখ হাসিনা। যিনি এদেশের রাজনীতিতে একটা আদর্শের নাম।  আওয়ামী লীগের পাশাপাশি সকল মানুষের আশা- আকাঙ্খার বাতিঘর। স্বপ্নের ঠিকানা।

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ডিজিটাল বাংলাদেশ থেকে স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে চারটি মূল প্রতিপাদ্য ও স্লোগানকে সামনে রেখে  নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করেছিলো আওয়ামী লীগ।

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত চারটি স্তম্ভ হলো- ১. স্মার্ট সিটিজেন, ২. স্মার্ট সোসাইটি, ৩. স্মার্ট ইকোনমি ও ৪. স্মার্ট গভর্নমেন্ট। স্মার্ট বাংলাদেশ ২০৪১ প্রতিষ্ঠার জন্য  ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ টাস্কফোর্স’ ‘স্মার্ট বাংলাদেশ টাস্কফোর্স’ হিসেবে কাজ করবে বলেও ঘোষণা দিয়েছিলেন তিনি।

২০২৪ সালে অনুষ্ঠিত দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে আওয়ামী লীগ তার রাজনৈতিক ইতিহাসে এবং প্রথম রাজনৈতিক দল হিসেবে সর্বপ্রথম ডিজিটাল প্লাটফর্মে দলের মনোনয়ন ফর্ম বিক্রি শুরু করে ২০২৩ সালে।
স্মার্ট বাংলাদেশে পদার্পণের অন্যতম যাত্রা এটাকে বলা যেতে পারে তারই ধারাবাহিকতায় স্মার্ট আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক ইতিহাসে আরেকটা দুরন্ত কার্যকরী সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে সেটা হল জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম হোয়াটসঅ্যাপ চ্যানেল খুলেছে  ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ।
যার মাধ্যমে দলীয় প্রধান শেখ হাসিনাসহ অন্যান্য সকল কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ, তৃণমূল পর্যায়ে  আওয়ামী লীগের সকল নেতা-কর্মীদের সাথে সরাসরি যোগাযোগ স্থাপনের মাধ্যমে দলের সকল রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত দ্রুত বাস্তবায়নে যথাযথ পদক্ষেপ নেয়ার নির্দেশনা দিতে পারবেন। যদিও আটটি বিভাগের জন্য আটটি সমন্বয় টিম আছে। যারা দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনার কাছে তৃণমূলের সকল রিপোর্ট জমা দেন। প্রান্তিক পর্যায়ে ইন্টারনেট সেবা পৌঁছে যাওয়ায় এই অ্যাপ ব্যবহার আরও সহজতর করে দেবে আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক চর্চাকে।

আওয়ামী লীগ ওয়েব টিমের সমন্বয়ক তন্ময় আহমেদ জানান, দলের সঙ্গে সাধারণ মানুষের  যোগাযোগ আরও সহজতর করতে জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে হোয়াটসঅ্যাপ চ্যানেলটি চালু করা হয়েছে। প্রান্তিক পর্যায় থেকে শুরু করে সবাই এখন খুব সহজে এই চ্যানেল থেকে আওয়ামী লীগের বিভিন্ন বিষয় জানতে পারবে।

হোয়াটসঅ্যাপ চ্যানেল ছাড়াও আওয়ামী লীগের ইউটিউব চ্যানেল, ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজ, এক্স ও টেলিগ্রামে অ্যাকাউন্টও রয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
এক ক্লিকে বিভাগের খবর