শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ০৪:০৭ পূর্বাহ্ন

না ফেরার দেশে অভিনেত্রী শ্রীলা মজুমদার

বিনোদন ডেস্ক / ৭১ Time View
Update : রবিবার, ২৮ জানুয়ারী, ২০২৪

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের অভিনেত্রী শ্রীলা মজুমদার মারা গেছেন। দীর্ঘদিন জরায়ু ক্যানসারের সঙ্গে লড়ে শনিবার (২৭ জানুয়ারি) না ফেরার দেশে পাড়ি জমিয়েছেন এই অভিনেত্রী। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬৫ বছর। মৃত্যুরদিন রাতেই কেওড়াতলা মহাশ্মশানে শেষকৃত্য সম্পন্ন হয় অভিনেত্রীর।

জানা গেছে, গত ৩ বছর ধরে ক্যানসারে ভুগছিলেন তিনি। গেল বছর নভেম্বর মাসে শ্রীলার শারীরিক অবস্থার অবনতি হয় বলে জানা গেছে।

অভিনেত্রীর স্বামী এসএনএম আব্দি জানান, গত ১৩ থেকে ২০ জানুয়ারি পর্যন্ত কলকাতার একটি ক্যানসার হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন শ্রীলা। এরপর বাড়িতে নিয়ে আসা হয় তাকে। তারপর থেকে বাড়িতেই ছিলেন শ্রীলা।

শ্রীলার ছেলে সোহেল আব্দি পড়াশোনার সূত্রে লন্ডনে থাকেন। কিন্তু মায়ের শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় দেশে ফিরে আসেন তিনি।

১৯৮০ সালে মৃণাল সেনের ‘পরশুরাম’ সিনেমার মাধ্যমে অভিনয় জগতে পা রাখেন তিনি। তখন শ্রীলার বয়স ছিল ১৬। এরপর ‘এক দিন প্রতি দিন’, ‘আকালের সন্ধানে’, ‘খারিজ’র মতো উল্লেখযোগ্য সিনেমায় অভিনয় করেছেন শ্রীলা। সর্বশেষ কৌশিক গাঙ্গুলী পরিচালিত ‘পালান’ সিনেমায় দেখা গেছে শ্রীলাকে।

শাবানা আজমি, স্মিতা পাতিল, নাসিউরুদ্দিন শাহের মতো অভিনেতাদের সঙ্গে পর্দা দেখা গেছে শ্রীলাকে। শ্যাম বেনেগালের পরিচালনায় ‘আরহণ’, ‘মান্ডির’ মতো সিনেমাতেও কাজ করেছেন তিনি। এছাড়া ঋতুপর্ণ ঘোষের ‘চোখের বালি’ সিনেমায় ঐশ্বর্য রাই বচ্চনের হয়ে কণ্ঠ দিয়েছিলেন শ্রীলা।

পর্দার পাশাপাশি মঞ্চাভিনয়েও সাড়া ফেলেছিলেন শ্রীলা। সত্য বন্দ্যোপাধ্যায় পরিচালিত ‘নহবত’ নাটকে শ্রীলার অভিনয় নজর কেড়েছিল। বাণিজ্যিক ধারার ছবিতেও কিন্তু শ্রীলার অভিনয় যথেষ্ট প্রশংসিত হয়েছে। অঞ্জন চৌধুরির ‘পূজা’ ছবিতে শ্রীলার অভিনয় মনে ধরেছিল দর্শকের। তেমনি হরনাথ চক্রবর্তীর ‘প্রতিবাদ’ ছবিতেও শ্রীলা সমান নজর কেড়েছেন। এই দুটি ছবির হাত ধরেই গ্রামবাংলার ঘরে ঘরে পৌঁছে গিয়েছিলেন তিনি। তবে ইদানীং কাজ কমিয়ে দিয়েছিলেন শ্রীলা। খানিকটা অসুস্থতার কারণেই পর্দায় শ্রীলাকে বিশেষ দেখা যাচ্ছিল না। শ্রীলার সহকর্মীদের অনেকেরই আক্ষেপ, দক্ষ এবং পেশাদার অভিনেত্রী হওয়া সত্ত্বেও পর্দায় তাকে ঠিকমতো ব্যবহার করা হয়নি। তবে এ সব নিয়ে অবশ্য কখনওই তেমন সরব হননি শ্রীলা। বরাবরই শান্ত, স্থির ছিলেন। কম কথা বলতেন। ঠিক তেমন ভাবেই এই মাঘের শীতে নিঃশব্দে পাড়ি দিলেন পরপারে।

এমআর


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
এক ক্লিকে বিভাগের খবর