শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ০২:৪৪ পূর্বাহ্ন

একজোট হলেন নওয়াজ শরিফ ও বিলাওয়াল ভুট্টো

আন্তর্জাতিক ডেস্ক / ৫৯ Time View
Update : শনিবার, ১০ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪
ফাইল ছবি

পাকিস্তানের সাধারণ নির্বাচনে এ পর্যন্ত যে ফলাফল প্রকাশিত হয়েছে তাতে এককভাবে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায়নি কোনো দল। এমন পরিস্থিতিতে জোট সরকার গঠন করতে ঐকমত্যে পৌঁছেছে পাকিস্তান মুসলিম লীগ-নওয়াজ (পিএমএল-এন) ও পাকিস্তান পিপলস পার্টি (পিপিপি)।

জিও নিউজের খবরে বলা হয়েছে, পিপিপির চেয়ারম্যান বিলাওয়াল ভুট্টো জারদারি ও তার বাবা পাকিস্তানের সাবেক প্রেসিডেন্ট আসিফ আলি জারদারির সঙ্গে বৈঠক করেছেন পিএমএল-এন-এর প্রেসিডেন্ট শাহবাজ শরিফ। পাঞ্জাবের তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান মহসিন নাকভির বাড়িতে এই বৈঠক হয়।

বৈঠক সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানিয়েছে, বিলাওয়াল ও আসিফ জারদারির সঙ্গে শাহবাজ শরিফের বৈঠকে জোট বেঁধে কেন্দ্রে ও পাঞ্জাবে সরকার গড়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

পাকিস্তানের নির্বাচনে এবছর হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হয়েছে সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ এবং জেলবন্দি ইমরান খানের মধ্যে। তবে চলতি বছর নির্বাচনে ইমরান খানের পিটিআই দলের প্রার্থীরা স্বতন্ত্রভাবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছে। কারণ, আইনি জটিলতার কারণে এবছর পিটিআই দল হিসাবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে পারেনি।

নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণার আগেই জেলে থেকে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (এআই) ব্যবহার করে তৈরি একটি অডিও-ভিজুয়্যাল বার্তা দিয়েছেন ইমরান খান। তিনি বলেন, ৯ ফেব্রুয়ারি পাকিস্তানের সাধারণ নির্বাচনে তিনি জয়লাভ করেছেন। ইমরান খান তার সমর্থকদের বিজয় উদযাপন করার নির্দেশ দিয়েছেন।

অন্যদিকে পাকিস্তান মুসলিম লিগের (পিএমএল-এন) নেতা নওয়াজ শরিফও জয় দাবি করেছেন। বিজয় ভাষণে তিনি বলেন, আমরা আপনাদের সবাইকে অভিনন্দন জানাচ্ছি । পাকিস্তান মুসলিম লীগ (পিএমএল-এন) বৃহত্তম দল হিসেবে জয়লাভ করেছে।

প্রসঙ্গত, গত ৮ ফেব্রুয়ারি পাকিস্তানের জাতীয় নির্বাচনে ২৬৫ আসনে ভোটগ্রহণ হয়। নির্বাচনের প্রায় ৪০ ঘণ্টা পার হলেও সব আসনের ফলাফল প্রকাশ করতে পারেনি নির্বাচন কমিশন। তবে সর্বশেষ পাওয়া তথ্যানুসারে, আজ শনিবার সকাল ৬টা পর্যন্ত ২৫০টি আসনের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ৯৯ আসনে জয় পেয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। তাদের বেশির ভাগই পিটিআইয়ের (ইমরান খান) সমর্থন নিয়ে নির্বাচনে লড়েছেন। পিএমএল-এন (নওয়াজ শরীফ) ৭১টি ও পিপিপি (বিলাওয়াল ভুট্টো জারদারি) ৫৩ আসলে জয়ী হয়েছে। এছাড় এমকিউএম ১৭টি আসনে জয়ী হয়েছে। অন্যান্য দল পেয়েছে ১০টি আসন।

কোনো দলের সরকার গঠনে প্রয়োজন হবে ১৩৪ আসন। কিন্তু কোনো দল একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায়নি। এ পরিস্থিতিতে জোট সরকার গড়তে ঐকমত্যে পৌঁছেছে পাকিস্তান মুসলিম লিগ-নওয়াজ (পিএমএল-এন) ও পাকিস্তান পিপলস পার্টি (পিপিপি)।

এমআর


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
এক ক্লিকে বিভাগের খবর