রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ১১:১৪ পূর্বাহ্ন

বাংলাদেশের কূটনৈতিক দূরদর্শিতার কারণে নমনীয় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র- মাইকেল কুগেলম্যাম

শেখ সাদী খান / ৯৬ Time View
Update : বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪

ওয়াশিংটনের পররাষ্ট্রনীতিতে ঢাকা এখনো একটি পরীক্ষামূলক মামলা হিসেবে রয়ে গেছে, কিন্তু পরীক্ষাটি এখন কম কঠোরতার সাথে পরিচালিত হচ্ছে। সম্পর্কের গুরুত্ব এবং বার্তা ইতিবাচকতা এবং সম্ভাবনার উপর জোর দিচ্ছে,জনসাধারণের চাপ শেষ পর্যন্ত এটি প্রতিফলিত হয়, আপাতত,মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এই সিদ্ধান্তে পৌঁছেছে যে বাংলাদেশের সাথে মসৃণ সম্পর্ক একটি কৌশলগত বাধ্যতামূলক।
অনলাইন সংবাদম্যাধম “দ্য ফরেন পলিসিতে” সাপ্তাহিক দক্ষিণ এশিয়া বিষয়ক লেখায় এসব কথা উল্লেখ করেছেন মাইকেল কুগেলম্যান। উইলসন সেন্টারের সাউথ এশিয়া ইনস্টিটিউটের পরিচালক মাইকেল কুগেলম্যান।
মাইকেল কুগেলম্যান তার লেখায় উল্লেখ করেন, মার্কিন একটা প্রতিনিধি দল বাংলাদেশ সফর শেষ করেছে। কূটনৈতিক সম্পর্ক জোরদার করা এবং ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলে সম্পর্কোন্নয়নের স্বার্থে একটা এজেন্ডা নিয়ে এই সপ্তাহে মার্কিন সরকারের একটি সিনিয়র প্রতিনিধি দল বাংলাদেশ সফর করেছে। এই দলে ন্যাশনাল সিকিউরিটি কাউন্সিলের আইলিন লাউবাচার, স্টেট ডিপার্টমেন্টের আফরিন আক্তার এবং ইউএস এজেন্সি ফর ইন্টারন্যাশনাল ডেভেলপমেন্টের মাইকেল শিফার ছিলেন। তাদের আলোচনা জলবায়ু পরিবর্তন, বাণিজ্য, রোহিঙ্গা শরণার্থী সংকট এবং শ্রম অধিকার নিয়েও ছিল প্রতিনিধি দল ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, ব্যবসায়িক নির্বাহী, সুশীল সমাজের সংগঠন এবং বিরোধী দলের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন।
তিনি আরও বলেন, এই সফরটি দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের একটি স্পষ্ট পরিবর্তনের মধ্যে একটা সুর ও বার্তা এসেছে। বাংলাদেশের ৭ জানুয়ারি নির্বাচনের সামনের মাসগুলিতে,মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র মানবাধিকার ও গণতন্ত্রকে উন্নীত করার জন্য নিষেধাজ্ঞা, ভিসা বিধিনিষেধ এবং জনসমালোচনার মাধ্যমে জোরালো পদক্ষেপ নিয়েছে। স্টেট ডিপার্টমেন্ট ভোটটিকে অবাধ বা সুষ্ঠু নয় বলে চিহ্নিত করেছে। ৬ ফেব্রুয়ারি , মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে একটি চিঠি পাঠান যাতে যুক্তরাষ্ট্র-বাংলাদেশ সম্পর্কের “পরবর্তী অধ্যায়” স্বাগত জানানো হয়; তবে সেখানে নাগরিক অধিকার বা গণতন্ত্রের কথা উল্লেখ করেনি।
এই সপ্তাহে মার্কিন প্রতিনিধিদলের সফরের সময়,পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাসান মাহমুদ সহ বাংলাদেশি কর্মকর্তারা নতুন করে সম্পর্কোন্নয়নের উপর জোর দিয়েছিলেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপদেষ্টা সালমান রহমান বলেন,‘নির্বাচন এখন অতীতের বিষয়। অংশীদারিত্বের শক্তির প্রচুর রেফারেন্স সহ উভয় পক্ষের বার্তাগুলি উষ্ণ এবং কার্যকর ছিল৷ এটি গত এপ্রিলের তুলনায় বেশ বৈপরীত্য তৈরি করে, যখন হাসিনা বাংলাদেশের সংসদে দাঁড়িয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে শাসন পরিবর্তনের চেষ্টা করার জন্য অভিযুক্ত করেছিলেন। পরিবর্তনের জন্য কি অ্যাকাউন্ট? একটি সম্ভাবনা হল ঢাকার অত্যন্ত অভিযুক্ত রাজনৈতিক পরিবেশ থেকে নিজেকে দূরে রাখতে ওয়াশিংটনের ইচ্ছা। বাংলাদেশে মানবাধিকার এবং গণতন্ত্র সম্পর্কে মার্কিন কর্মকর্তারা যত বেশি প্রকাশ্যে মতামত দেন, তত বেশি তাদের এতে টেনে আনার ঝুঁকি থাকে। গত নভেম্বরে উদাহরণস্বরূপ, মার্কিন দূতাবাস বাংলাদেশে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত পিটার হাসকে নির্দেশিত সহিংস হুমকির বিষয়ে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে।
অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য বাংলাদেশের উপর বারবার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জনসাধারণের চাপ চীন ও রাশিয়া উভয়কেই উৎসাহিত করেছিল, তারা বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে হস্তক্ষেপ করার অজুহাত দিয়েছিল। সেই চাপ ভারতকেও বিপর্যস্ত করেছিল, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশীদার যেটি বাংলাদেশের ক্ষমতাসীন দলের সাথে ঘনিষ্ঠভাবে যুক্ত। পূর্ববর্তী মার্কিন পন্থা কার্যকরভাবে বেইজিং এবং মস্কোকে ঢাকায় একটি সুবিধা দিয়েছে এবং নয়াদিল্লিকে স্থান দিয়েছে।
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নতুন পদ্ধতিতে ভূ-রাজনৈতিক কারণগুলিও ভূমিকা পালন করে। প্রতিবেশী মিয়ানমারে সংঘাত তীব্রতর হচ্ছে এবং বাংলাদেশ লাখ লাখ রোহিঙ্গা শরণার্থীকে আতিথ্য করে কিন্তু তাদের প্রত্যাবাসনের চেষ্টা করছে। ওয়াশিংটন এই স্পর্শকাতর ইস্যুতে ঢাকার সাথে জড়িত থাকার জন্য পর্যাপ্ত কূটনৈতিক স্থান নিশ্চিত করতে চায়। উপরন্তু, মধ্যপ্রাচ্যে অস্থিতিশীলতার দিকে মার্কিন পররাষ্ট্র-নীতির মনোযোগ ক্রমবর্ধমানভাবে কেন্দ্রীভূত হওয়ায়, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র অন্য কোথাও কূটনৈতিক মাথাব্যথা কমাতে চায়। যুক্তরাষ্ট্র-বাংলাদেশ সম্পর্কের পরিবর্তন যতটা তীক্ষ্ণ মনে হচ্ছে ততটা নয়। নির্বাচন নিয়ে উত্তেজনা থাকা সত্ত্বেও, সম্পর্ক ইতিমধ্যেই গভীরতর হচ্ছিল, বিশেষ করে বাইডেন তার চিঠিতে অগ্রাধিকার হিসাবে চিহ্নিত ক্ষেত্রগুলিতে: বাণিজ্য, প্রতিরক্ষা, জলবায়ু পরিবর্তন এবং মানবিক সমস্যা। উপরন্তু, মানবাধিকার এবং গণতন্ত্রের উপর ফোকাস অব্যাহত থাকবে। এই সপ্তাহের সফরে  আখতার বাংলাদেশের প্রধান বিরোধী দলের নেতাদের সাথে সাক্ষাত করেন এবং মার্কিন দূতাবাসের একটি রিডআউট অনুসারে “হাজার হাজার বিরোধী সদস্য কারাগারে” নিয়ে আলোচনা করেন।
তথ্যসূত্রঃ ওয়াশিংটনভিত্তিক গণমাধ্যম ‘দ্যা ফরেন পলিসি’ থেকে নেয়া।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
এক ক্লিকে বিভাগের খবর