বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ১২:৫১ পূর্বাহ্ন

জনগণের দল আওয়ামী লীগ, ক্ষমতার দল বিএনপি- ওবায়দুল কাদের

শেখ সাদী খান / ৯৮ Time View
Update : শনিবার, ২৩ মার্চ, ২০২৪

বিএনপি হচ্ছে নিজেদের ক্ষমতা আর পকেটের উন্নয়নরে রাজনীতি করে, হাওয়া ভবনে ছাড়া বিএনপি টিকবে না। কারণ এই দল ক্ষমতা কেন্দ্রীক দল, মানুষের দল নয়। কিন্তু আওয়ামী লীগ জনগণের দল এই হল পার্থক্য বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

আজ শনিবার (২৩ মার্চ) সকাল সাড়ে দশটায়, রাজধানীর তেজগাঁও ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগ অফিসে ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে ইফতার সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, আজকে বিএনপি ইফতার পার্টি করে আর আওয়ামী লীগ ইফতার সামগ্রী বিতরণ করে। তারা ইফতার খাওয়ার পার্টি করে, আমরা ইফতার দেওয়ার পার্টি। এই হল আওয়ামী লীগের সাথে বিএনপির পার্থক্য।

কাদের আরও বলেন, বিএনপি হচ্ছে নিজেদের ক্ষমতা আর পকেটের উন্নয়নরে রাজনীতি করে। বড় কষ্টে আছে, দীর্ঘদিন ক্ষমতা নেই তো। ক্ষমতায় না থাকায় লুটেপুটে খাওয়া হাওয়া ভবন করার সুযোগ নেই।

তিনি আরও বলেন, ক্ষমতা ছাড়া বিএনপি টিকবে না। এটা ক্ষমতার দল,নিজেদের পকেটের উন্নয়নের দল।  জনগণের ভাগ্যোন্নয়নের দল হচ্ছে আওয়ামী লীগ, শেখ হাসিনা।

সেতুমন্ত্রী আরও বলেন, সাধারণ মানুষের মাঝে ইফতার সামগ্রী বিতরণ কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে। সারা ঢাকা সিটিতে ছড়িয়ে দিতে হবে এই কর্মসূচি।

কাদের আরও বলেন, সারাদেশে মানুষে কিছুটা কষ্ট আছে দ্রব্যমূল্যের দাম বেড়ে যাওয়ায়। জিনিসপত্রের দাম আরও কমবে এতে সাধারণ মানুষের কাছে সহনীয় থাকবে।

তিনি বলেন, আজকে বিএনপি আবারও চিরাচরিত পাকিস্তানি কায়দায়, পাকিস্তানি আমল থেকেই যে অপপ্রচার শুনেছি যখন কোন রাজনৈতিন ইস্যু থাকেনা তখন একটু আওয়ামী লীগ নিয়ে আসে বঙ্গবন্ধুর বিরোধিতা করে। এখন আবার শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে সমালোচনা করে। সেটা হচ্ছে ভারত বিরোধিতার ইস্যু। এখানে ইন্ডিয়ার কি আছে? বাংলাদেশের জনগণ ভোট দিয়ে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনাকে নির্বাচিত করেছে। ৪১% বেশি ভোট নির্বাচনে পড়েছে। যেটা অনেক উন্নত দেশেও এই পরিমাণ ভোট পড়েনা। তারপরও বলে এখানে ইন্ডিয়া আমাদের নির্বাচিত করেছে। কোথায় ইন্ডিয়া? ভোট কেন্দ্রে আমাদের জনগণ,আমাদের ভোটাররা ভোট দেয়।

তিনি আরও বলেন ইন্ডিয়াসহ বন্ধুদেশ যারা আছে তারা দেশে-বিদেশে নির্বাচন বানচালের যে ষড়যন্ত্র তখন আমাদের পাশে দাঁড়িয়েছে। এটাই সত্য। তারা আমাদের ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেনি। আমাদের নির্বাচন বানচালের ষড়যন্ত্র প্রতিহত করার সময়  ইন্ডিয়া আমাদের পাশে দাঁড়িয়েছিল।

তিনি আরও বলেন, শুনেছি বিএনপির মহাসচিব সিঙ্গাপুরে। আবার প্রতিদিনই দেখি তার একটা বিবৃতি। কোন দলের সেক্রেটারি জেনারেল বিদেশে গিয়ে দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয় নিয়ে কথা বলেনা, নেতৃত্ব দেয়না।

এ সময় আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক সিঙ্গাপুরে নিজের চিকিৎসা প্রসঙ্গ টেনে বলেন, অনেকবার চেক আপের জন্য সিঙ্গাপুর গিয়েছি, কিন্তু আমি কোনদিনও কোন বিবৃতি বা বক্তব্য বিদেশ থেকে দেয়নি। এটা নিয়ম না। আর তিনি প্রতিদিনই দমন নিপীড়ন একটাই ভাষা ব্যবহার করছেন। একে একে বিএনপির সব নেতাই জেল থেকে বেরিয়েছে।

নতুন করে দমন নিপীড়ন কোথা থেকে হচ্ছে জানতে চেয়ে কাদের বলেন, এখন মির্জা ফখরুল সিঙ্গাপুরে বসে দমন নিপীড়নের খবর দিচ্ছে। অবাক করা এই দল।

তিনি আরও বলেন,  এক নেতা বলে ভারত, বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে বাংলাদেশকে স্বাধীন করার পেছনে আপনারা সহযোগিতা করেছেন, আরেকজন বলে ভারতীয় পণ্য বর্জন করতে। এখন কোন নেতায় নেতায় মতের মিল নেই। হাফিজ বলে এক কথা মঈন খান বলে এক কথা, রিজভী বলে আরেক কথা। আবার সিঙ্গাপুর থেকে ফখরুল বলে আরেক কথা।এই হচ্ছে অবস্থা একটা দলের।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, এড কামরুল ইসলাম, উপদেষ্টামন্ডলির সদস্য, সালমান এফ রহমান প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক  উপদেষ্টা ,নসরুল হামিদ প্রতিমন্ত্রী বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয় আব্দুল বাতেন সদস্য জাতীয় কমিটি, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ দপ্তর সম্পাদক মো: রিয়াজ উদ্দিন রিয়াজসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

সভায় সভাপতিত্ব করেন বেনজির আহমেদ সভাপতি ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগ ও সঞ্চালনায় ছিলেন মনিরুজ্জামান তরুণ, সাধারণ সম্পাদক ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
এক ক্লিকে বিভাগের খবর