সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ০৩:৩৮ অপরাহ্ন

রাজনৈতিক দলগুলোকে বৈরিতা পরিহার করে আলোচনার টেবিলে বসতে হবে: সিইসি

নিজস্ব প্রতিবেদক / ৩৪ Time View
Update : রবিবার, ২ জুন, ২০২৪
প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী হাবিবুল আউয়াল

প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেছেন, বিরাজমান রাজনৈতিক বৈরিতা প্রকট, রাজনৈতিক দলগুলোকে আলোচনার টেবিলে বসতে হবে। এ বৈরিতা নিয়ে সামনে এগোনো সম্ভব না।
রোববার দুপুরে টিআইবি প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বৈঠক শেষে এ কথা বলেন তিনি।
রাজনৈতিক সংলাপের উপর জোর দিয়ে সিইসি বলেন, দলগুলোর মধ্যে এখনো কোনো আলাপ আলোচনা আমি দেখছি না। তাদের মধ্যে যে বৈরিতা, তা অত্যন্ত প্রকট। ব্যক্তিগতভাবে আমি মনে করি এই প্রকট বৈরিতা থাকলে সামনে এগোনো খুব কঠিন হবে। এই বৈরিতা পরিহার করে আলোচনার টেবিলে বসতে হবে। টিআইবির মতো সিভিল সোসাইটিও এক্ষেত্রে ভূমিকা পালন করতে পারে।
নির্বাচন কমিশনের ক্ষমতার সীমাবদ্ধতার কথা তুলে ধরে প্রধান নির্বাচন কমিশনার বলেন, নির্বাচন কমিশনের সীমিত সামর্থ। যতটুকু করা সম্ভব আমরা চেষ্টা করি। ইলেকশন কমিশন একা কখনোই সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচন করতে পারবে না। যদি না রাষ্ট্র এবং সরকারের পলিটিকাল উইল এর স্বপক্ষে থাকে। রাষ্ট্র ও সরকারের পলিটিক্যাল স্বপক্ষে থাকে তবে প্রশাসন এবং আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী তাদের দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করতে বাধ্য হবে।
টিআইবিকে কমিশন থেকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল উল্লেখ করে কাজী হাবিবুল্লাহ বলেন, আমরাই তাদেরকে আমন্ত্রণ করেছিলাম। তারা বলেছে আমরা তথ্যটা যেন দ্রুত তুলি। কিছু ক্ষেত্রে তারা বলেছে আমরা দ্রুত তথ্য দেইনা। আবার কিছু ক্ষেত্রে বলেছে আমরা তড়িৎ গতিতে তথ্য দিয়েছি এবং তারা এ প্রশংসা করেছে। উনারা বলেছে আমরা কিছু ক্ষেত্রে যথাযথভাবে দায়িত্ব পালন করছি না। এক্ষেত্রে আমাদের কমিশনার আলমগীর সাহেব বলেছেন আমাদের আইনের সীমাবদ্ধতা রয়েছে। আমাদেরকে হলফনামা দেওয়ার কথা বলা হয়েছে, আমরা হলফনামা ওয়েব সাইটে তুলে দিয়েছি। কিন্তু তাদের সম্পত্তি বিশ্লেষণ করে পদক্ষেপ নেয়ার জন্য কোন দায়িত্ব আমাদের উপর অর্পণ করা হয়নি।
নির্বাচন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, উনারা মনে করেন নির্বাচন সুন্দর ফেয়ার হয়েছে কিন্তু একটা ঘাটতি রয়ে গেছে। গণতান্ত্রিক চেতনা থেকে যে ইনক্লুসিভ নির্বাচন হয় সেটা হয়নি। আমরা বলেছি দেশের যে সমস্যা তা অনেকটা রাজনৈতিক। রাজনৈতিক সমস্যাগুলো নিরসন না হলে নির্বাচন ব্যবস্থা আরও স্টেবল হবে না। রাজনৈতিক বোঝাপড়াটা হয়ে গেলে নির্বাচনটা আরো সুন্দর ও সুষ্ঠু হতে পারে।
তিনি জানান, উনারা বলেছে আমরাও বলেছি সিস্টেম পরিবর্তনের কথা। আনুপাতিক প্রতিনিধিত্বের কথা বলা হয়েছে। একাধিক দিনে ভোটের কথা বলা হয়েছে। আমরাও বলেছি এটা সম্ভব হলে নির্বাচনে অধিক সংখ্যক ফোর্স নিয়োগ করা সম্ভব হবে। মনিটরিংটা সহজ হবে।
টিআইবি নির্বাহী পরিচালক ইফতেখারুজ্জমানের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল প্রধান নির্বাচন কমিশনারসহ অন্য নির্বাচন কমিশনারদের নিয়ে বৈঠক করেন।
এসময় হলফনামার তথ্য প্রকাশ, হলফনামায় অসত্য তথ্য দিয়ে ব্যবস্থা নেওয়ার বিষয় নিয়ে আলোচনা করে প্রতিনিধি দল।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
এক ক্লিকে বিভাগের খবর